দোয়ারাবাজারে অতিরিক্ত ভর্তি ফি ফেরত দেওয়া শুরু

দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি


সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০
০৮:১৭ অপরাহ্ন


আপডেট : সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০
০৮:১৭ অপরাহ্ন



দোয়ারাবাজারে অতিরিক্ত ভর্তি ফি ফেরত দেওয়া শুরু

একাদশ শ্রেণির অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায়ের সংবাদ প্রকাশ করার পর এলাকাজুড়ে তোলপাড় শুরু হলে সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার সকল প্রতিষ্ঠানকে বাড়তি ফি ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এমন নির্দেশনার পর দীর্ঘদিন পার হলেও এখনও সকল প্রতিষ্ঠানকে অতিরিক্ত ফি ফেরত দেওয়ার উদ্যোগ নিতে দেখা যায়নি। এ নিয়ে এলাকার শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) উপজেলার বোগলা রোছমত আলী রাম সুন্দর স্কুল এন্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নিকট অতিরিক্ত টাকা ফেরত দেওয়া শুরু করলেও অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এ ব্যাপারে নীরব রয়েছে। সঙ্গত কারণেই অনেকে মনে করছেন, প্রতিবছর নানা অজুহাতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নীতিমালা বহির্ভুত ‘রক্তচোষা নীতি’ অবলম্বন করে অধিক হারে ভর্তি ফি আদায় করছেন। এ কারণে অনেক দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয়। শুধু তাই নয়, ভর্তি ফি দিতে না পেরে অনেকে ঝরে পড়ে অসময়ে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, এ বছর দোয়ারাবাজার উপজেলার প্রায় সকল কলেজ ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সমমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নীতিমালা বহির্ভুতভাবে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে আদায় করা হয়েছে অতিরিক্ত ফি। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি ফি বাবদ নেওয়া হবে ১ হাজার টাকা ও উন্নয়ন ফি সর্বোচ্চ ১ হাজার ৫শ টাকাসহ সর্বসাকুল্যে ২ হাজার ৫শ টাকার উপর বাড়তি ফি নেওয়া যাবে না। কিন্তু প্রায় প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বাড়তি ফি আদায় করেছিল। উপজেলায় সর্বোচ্চ ফি আদায় করা হয় বোগলা রোছমত আলী রাম সুন্দর স্কুল এন্ড কলেজে। ওই প্রতিষ্ঠান প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ভর্তি ফি বাবদ ৩ হাজার ৬শ টাকা করে আদায় করেছে। একইভাবে উপজেলার লিয়াকতগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজে ৩ হাজার ১শ টাকা ও সমুজ আলী স্কুল এন্ড কলেজে ৩ হাজার ১শ টাকা আদায় করা হয়েছে।

এ নিয়ে সম্প্রতি বিভিন্ন স্থানীয় পত্রিকা ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর টনক নড়ে স্থানীয় প্রশাসনের। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা জরুরি বৈঠক ডেকে সকল প্রতিষ্ঠানকে একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায় করা অতিরিক্ত ফি ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেন। ওই নির্দেশের ধারাবাহিকতায় আজ বৃহস্পতিবার উপজেলার বোগলা রোছমত আলী রাম সুন্দর স্কুল এন্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ অতিরিক্ত ফি ফেরত দেওয়া শুরু করেছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ওই প্রতিষ্ঠানের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোস্তফা কামাল বলেন, 'প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের স্বার্থে অতিরিক্ত ফি নেওয়া হয়েছিল। বৃহস্পতিবার থেকে অতিরিক্ত ফি ফেরত দেওয়া শুরু করেছি। উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশনাক্রমে টাকা ফেরত দেওয়া হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোনিয়া সুলতানা বলেন, 'আমি সকল প্রতিষ্ঠানকে জানিয়ে দিয়েছি পরিপত্রের আলোকে একাদশ শ্রেণির ভর্তি ফি আদায় করার জন্য। এখন পর্যন্ত যারা বাড়তি ফি আদায় করেছেন, তারা তা ফেরত দিয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে অবহিত করার নির্দেশনা দিয়েছি।'

 

এইচএইচ/আরআর-০৮