হোমিও কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ভূমি দখল চেষ্টার অভিযোগ

সিলেট মিরর ডেস্ক


ডিসেম্বর ০২, ২০২০
০১:৫৩ পূর্বাহ্ন


আপডেট : ডিসেম্বর ০২, ২০২০
০১:৫৩ পূর্বাহ্ন



হোমিও কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ভূমি দখল চেষ্টার অভিযোগ
সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন

জালালাবাদ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের নেতৃত্বে সিলেট নগরের বাগবাড়ী এতিম স্কুল রোডে প্রবাসীর কোটি টাকা মূল্যের ভূমি জোরপূর্বক দখল চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন সিলেট নগরের পশ্চিম লালাদিঘীরপারের বাসিন্দা মো. জাহেদ হাসান।

লিখিত বক্তব্যে জাহেদ হাসান বলেন, তিনিসহ আরও তিনজন যুক্তরাজ্য প্রবাসী এতিম স্কুল রোডের বাগবাড়ী মৌজায় ১২ শতক ভূমি ক্রয় করেছিলেন। প্রায় ৪২ বছর ধরে এ ভূমি তাদের ভোগদখলে রয়েছে। কিন্তু এই ভূমি অন্য একটি পক্ষের কাছ থেকে কিনেছেন দাবি করে দখলের পাঁয়তারা করছেন জালালাবাদ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তার আরও দুজন সঙ্গী।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জাহেদ হাসান বলেন, ‘বাগবাড়ী মৌজার জেএল নং ৯০, খতিয়ান নম্বর ২১৯ এর ৮৮৭ নম্বর দাগে মোট ৩০ শতক ভূমি রয়েছে। ১৯৭৭ সালের রেজিস্ট্রি দলিলমূলে এ ভূমির মালিক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ও সৈয়দ ফারুক আলী। পরবর্তীতে বাটোয়ারা দলিলের মাধ্যমে সৈয়দ আনোয়ার হোসেন তার অংশটুকুও ভাই সৈয়দ ফারুক আলীকে দিয়ে দেন। এর ফলে পুরো ভূমির মালিকানা তার নামে হয়ে যায়। এখান থেকে যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাজ্জাদুর রহমান তার কাছ থেকে ১৫.২৫ শতক ভূমি কিনে নেন। এছাড়া আরেক প্রবাসী মনজুর হায়াতের কাছে ৮.৫০ শতক এবং প্রবাসী হাসানুজ্জামানের নিকট ১ দশমিক ৫০ শতক ও যৌথভাবে তিনি ও প্রবাসী রিমা চৌধুরী ২ শতক ভূমি কিনে নেন। এই ১২ শতকের বাইরের ১৭.৭৫ শতক ভূমি সাজ্জাদুর রহমানের মালিকানায়ই রয়েছে।’

লিখিত বক্তব্যে জাহেদ হাসান দাবি করেন, তাদের যৌথ মালিকানায় থাকা এই ১২ শতক ভূমিসহ ২২ শতক ভূমি জনৈক এক ব্যক্তির আমমোক্তারমূলে কিনে নিয়েছেন বলে দাবি করছেন জালালাবাদ হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ। আর এর মূলে রয়েছেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ এবং একজন প্রভাষক। এ তিনজন তাদের সহযোগিদের নিয়ে এ ভূমি দখলের চেষ্টাও করে যাচ্ছেন। এই কারণে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ভূমির মালিকগণসহ তিনি উদ্বিগ্ন বলেও উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, এই দাগের পাশের ভূমিতে তাদের আরও একটি ভবন নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। কিন্তু এই জায়গায় নির্মাণ কাজ করতে দিচ্ছেন না কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের নেতৃত্বাধীন সিন্ডিকেট। তারা শ্রমিকদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। পাশাপাশি তাদেরও প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছেন।

এছাড়া প্রায় ২৫ বছর ধরে কেয়ারটেকারের দায়িত্বে থাকা নাছির উদ্দিনকেও মারধর করেছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। এমন পরিস্থিতিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন তারা। এই কারণে প্রশাসনের উর্ধ্বতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।

আরসি-০২