কানাইঘাটে স্ত্রীকে খুনের মামলায় স্বামী গ্রেপ্তার

কানাইঘাট প্রতিনিধি


অক্টোবর ১৭, ২০২০
০৭:৫৮ অপরাহ্ন


আপডেট : অক্টোবর ১৭, ২০২০
০৭:৫৮ অপরাহ্ন



কানাইঘাটে স্ত্রীকে খুনের মামলায় স্বামী গ্রেপ্তার

সিলেটের কানাইঘাটে স্ত্রী ফাতেমা বেগম হত্যা মামলার প্রধান আসামি মরম আলীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৯। আজ শনিবার (১৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বিয়ানীবাজার উপজেলা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউনিয়নের কালিনগর আগফৌদ গ্রামে গত বৃহস্পতিবার রাতে স্বামীর হাতে স্ত্রী ফাতেমা বেগম খুনের অভিযোগে কানাইঘাট থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। নিহতের মা কালিনগরকানাইঘাটে স্ত্রী  আগফৌদ গ্রামের আব্দুল খালিকের স্ত্রী জলিকা বেগম বাদী হয়ে গতকাল শুক্রবার থানায় এ হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় ফাতেমা বেগমের পলাতক স্বামী মরম আলীর নাম উল্লেখ করে আরও ৩/৪ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়।

এদিকে ফাতেমা বেগমের মরদেহের ময়নাতদন্ত ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। আজ শনিবার রাতে যেকোনো সময় ফাতেমার মরদেহ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই সঞ্জিত কুমার।

প্রসঙ্গত, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কলহের জের ধরে গত বৃহস্পতিবার রাতে ফাতেমা বেগমকে তার পিত্রালয়ে আলাদা একটি ঘরে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পালিয়ে যান তার স্বামী একই গ্রামের জালাল উদ্দিনের পুত্র মরম আলী। পরদিন শুক্রবার সকালে ঘটনার খবর পেয়ে কানাইঘাট থানার পুলিশ ও সিলেট সিআইডি'র ক্রাইম সিন ইউনিটের একটি দল ফাতেমার লাশ উদ্ধার করে। ফাতেমার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায় এবং তার মুখ ও কান দিয়ে রক্ত বের হতে দেখা গেছে। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ফাতেমা বেগমের স্বামী মরম আলী ছাড়া আর কেউ জড়িত রয়েছেন কি না সেটাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

এলাকার অনেকে বলেছেন, প্রায় এক বছর পূর্বে অন্য স্বামীর ঘর থেকে পালিয়ে এসে ফাতেমা বেগম বিয়ে করেন নিজের মামাতো ভাই মরম আলীকে। বিয়ের পর থেকে মরম আলী তার বাড়ি ছেড়ে শ্বশুরবাড়িতে আলাদা একটি ঘরে ফাতেমাকে নিয়ে বসবাস করতেন। বিয়ের পর থেকে তাদের মধ্যে ঝগড়াঝাঁটি লেগে থাকত।

 

এমআর/আরআর-১৫