মাঠে পারভেজ সত্যিকারের যোদ্ধা, সেরা নেতাদের একজন ছিলেন

ক্রীড়া প্রতিবেদক


অক্টোবর ৩০, ২০২০
০১:১৬ পূর্বাহ্ন


আপডেট : অক্টোবর ৩১, ২০২০
০৯:৪৮ অপরাহ্ন



মাঠে পারভেজ সত্যিকারের যোদ্ধা, সেরা নেতাদের একজন ছিলেন
সাবেক ক্রিকেটার পারভেজের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অতিথিরা

ক্রিকেট, ফুটবল, হকি তিন ইভেন্টেই সিলেট জেলা দলে খেলেছেন হানিফ আলম চৌধুরী। ক্রিকেটার পারভেজ সম্পর্কে বলতে গিয়ে বললেন, ‘পারভেজ এমন লড়াকু ক্রিকেটার যে শেষ বল পর্যন্ত হার মানত না। সে শুধু বেস্ট ফাইটারই ছিল না; আমার দেখা অন্যতম সেরা নেতাও সে। সতীর্থদের দিয়ে কিভাবে লড়াই চালাতে হয়, কিভাবে জিততে হয় সে বিষয়টা তার খুব ভালো জানা ছিল।’

জাতীয় ক্রিকেট লিগে ঢাকা মোহামেডানের দীর্ঘদিনের ওপেনার ছিলেন তিনি। সিলেট জেলা ও বিভাগীয় দলকে নেতৃত্বও দিয়েছেন। ঢাকার লিগে সিলেটের ক্রিকেটারদের আধিপত্য বেড়েছে তাঁর হাত ধরে। রাজিন সালেহ, এনামুল জুনিয়রদের মতো জাতীয় দলে প্রতিনিধিত্ব করা ক্রিকেটাররা অকপটে বলেন তার অবদানের কথা। তিনি সৈয়দ পারভেজ আহমেদ। দেড় যুগ আগে ক্রিকেট ছেড়েছেন, দেশ ছেড়ে থিতু হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে। দীর্ঘদিন পর দেশে আসা সেই ক্রিকেটারকে ঘিরে করোনা মহামরির সময়েও একত্রিত হয়েছিলেন সিলেটের ক্রিকেটার ও সংগঠকরা। প্রিয় এই ক্রিকেটটারকে সম্মাননা জানালেন তারা। সেই সঙ্গে হয়ে গেল পেছনের ফেলে আসা দিনগুলোর স্মৃতিচারণও। গল্পে আড্ডা চলল প্রায় দুই ঘন্টা।

ক্রিকেট আম্পায়ার আশরাফ হোসেন আরমানের সঞ্চালনায় সাবেক ক্রিকেটার পারভেজকে ঘিরে আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন সাবেক ক্রিকেটার আহমদ জুলকারনাইন, সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ইলেভেন ব্রাদার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস চৌধুরী রুহেল, ক্রিকেটার হানিফ আলম চৌধুরী, সাবেক ক্রিকেটার মুফতি জামাল আহমদ, বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক রাজিন সালেহ, জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার ও সিলেট ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এনামুল হক জুনিয়র, সাধারণ সম্পাদক আহমেদ সাদিকুর রহমান তাজিন, ডিএসএর সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য মনজুর আহমেদ চৌধুরী, ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মুফতি আব্দুল খাবির, সাবেক ক্রিকেটার ও জেলা ক্রিকেট কোচ মোহাম্মদ রানা মিয়া, ক্রিকেট আম্পায়ার ও ব্যাসিক ক্রিকেট একাডেমির পরিচালক ইমরান আজাদ, সিলেট টাইগার্স ক্রিকেট একাডেমির কোট তানজিল শাহরিয়ার, সাবেক ক্রিকেটার নুরুল মোস্তফা আহমেদ মিঠু, ফাহমিদ সাদেকীন প্রমুখ। 

ক্রিকেটার পারভেজকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  ফেরদৌস চৌধুরী রুহেল।

 

অনুষ্ঠানে সাবেক ও বর্তমান ক্রিকেটার, ক্রিকেট সংগঠকরা স্মৃতিচারণ করেন। সাবেক ক্রিকেটার আহমদ জুলকারনাইন বলেন, ‘পারভেজ আমার অনেক পরে ক্রিকেটে এসেছে। কিন্তু তার খেলাকে আমি পছন্দ করি। যদি এখন আবার আমার খেলার সুযোগ হতো তাহলে আমি তাকেই ফলো করতাম। সোজা ব্যাটে খেলতে পারা সিলেটের ক্রিকেটারদের মধ্যে সেই একসময় অন্যতম ছিল। এরপর রাজিন সালেহকে আমরা পেয়েছি।’

ক্রিকেটার এনামুল হক জুনিয়র বলেন, ‘আমার ক্রিকেট জীবনের পুরোটা সময় জুড়ে পারভেজ ভাইয়ের বড় অবদান রয়েছে। আমার ক্রিকেট জীবনের প্রথম অনুপ্রেরণা তিনি। শুধু আমি নয় রাজিন ভাই, তাপস দা, তান্না, সবার অনুপ্রেরণা ছিলেন তিনি।’ 

বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক রাজিন সালেহ বলেন, ‘সিলেটের ক্রিকেটে তাঁকে আমি আইকন মনে করি। টেকনিক্যাল দিক থেকে আমি যে এত সাউন্ড করতে পেরেছি, তাতে পারভেজ ভাইয়ের বড় অবদান রয়েছে।’

সংবর্ধনার জবাবে সাবেক ক্রিকেটার সৈয়দ পারভেজ আহমদ জানান নিজের অনুভূতির কথা। 

 

আড্ডার শেষের দিকে কিছুক্ষণের জন্য তা আনুষ্ঠানিকতায় রূপ নেয়। এসময় সংবর্ধিত ক্রিকেটার সৈয়দ পারভেজ আহমদের হাতে সিলেট ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও সাবেক ক্রিকেটারদের পক্ষ ক্রেস্ট প্রদান ছাড়াও ব্যাসিক ক্রিকেট একাডেমির এবং সিলেট টাইগার্স ক্রিকেট একাডেমির পক্ষ থেকেও তাকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। 

পরে সবাই নৈশভোজে অংশ নেন।

 

এএফ/০১