যুক্তরাজ্যে কাউন্সিলর পদে লড়ছেন সিলেটের পুষ্পিতা গুপ্ত

সিলেট মিরর ডেস্ক


এপ্রিল ২৩, ২০২১
০৪:৪৭ অপরাহ্ন


আপডেট : এপ্রিল ২৩, ২০২১
০৪:৪৭ অপরাহ্ন



যুক্তরাজ্যে কাউন্সিলর পদে লড়ছেন সিলেটের পুষ্পিতা গুপ্ত

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভুতরা রাজনীতিতে যুক্ত হন লেবার পার্টি হয়ে। এই দলটির প্রতিনিধিত্ব করে সাংসদ-মেয়র-কাউন্সিলরসহ যুক্তরাজ্যে অনেক জনপ্রতিনিধি পেয়েছে বাংলাদেশিরা। যাদের মধ্যে আবার সিলেটিদের আধিপত্য বেশি থাকে। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হয়েছে আরও একটি নাম। যুক্তরাজ্যের লন্ডনের ইলফোর্ডের সেভেন কিংস জেলার কাউন্সিলর হিসেবে লেবার পার্টির মনোনয়ন পেয়েছেন সিলেটের পুষ্পিতা গুপ্ত।

যুক্তরাজ্যের লন্ডনে বেড়ে ওঠা পুষ্পিতার জন্মস্থান মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার মুন্সিবাজার ইউনিয়নের করিমপুর চা বাগানে। তিনি খলগ্রাম করিমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষা সম্পন্ন করেন। এই বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেণিতে তিনি মেধাবৃত্তি পেয়েছিলেন। খলগ্রাম করিমপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে তিনি মাধ্যমিক শিক্ষা জীবন শেষ করেন। সুনমাগঞ্জ সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে সিলেট সরকারি মহিলা কলেজ থেকে বিএ সম্পন্ন করেন।

দুই সন্তানের মা পুষ্পিতা লেবার পার্টির কাউন্সিলর মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচনে জয়লাভের ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছেন। সেই সঙ্গে প্রাক্তন কাউন্সিলর স্টুয়ার্ট বেলউডের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, অত্যন্ত পরিশ্রমী কাউন্সিলর ছিলেন বেলউড। তার প্রতি অনেক সম্মান ও শ্রদ্ধা। সেভেন কিংসে পরিবর্তনের ধারা ফিরিয়ে আনার প্রত্যয় ব্যক্ত করে পুষ্পিতা বলেন, আমি বাংলা, হিন্দি, উর্দু ভাষা আয়ত্ত করেছি। ফলে নানান ভাষাভাষীর মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে সক্ষম হব।

পুষ্পিতা গুপ্ত করোনায় লকডাউনে কিংস জর্জ হাসপাতালের কর্মীদের জন্য খাবার প্রস্তুত ও  সরবরাহ করেছেন। সম্প্রতি তিনি রেডব্রিজ কাউন্সিলের দাতব্য সংস্থার সঙ্গে যুক্ত হয়ে গৃহহীন ও অভাবী লোকদের জন্য সপ্তাহে ১০০ গরম খাবার নিজ হাতে প্রস্তুত ও বিতরণ করেছেন।

তিনি বলেন, গৃহীনতার অবসান ঘটাতে হবে এবং এটি সমাধানে নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করতে হবে। ইলফোর্ড নর্থ শহরের হেইনল্ট ব্রাঞ্চ অ্যান্ড চেয়ার অব হেইনল্ট পুলিস ওয়ার্ডে একজন নারী কর্মকর্তা হিসেবেও কাজ করছি। যা থেকে আমি স্থানীয়দের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা ও তাদের প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করার গুরুত্ব উপলব্ধি করতে পারছি। একজন সমাজকর্মী হিসেবে বিভিন্ন সময়ে আমি সমাজের সম্প্রদায় এবং প্রতিনিধিদের মাঝে সমন্বয় সাধনসহ অপরাধমূলক ও সমাজবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ড নির্মুলের প্রচেষ্টা করে যাচ্ছি।

পুষ্পিতা পূর্ব লন্ডন ও রেডব্রিজের প্রতিটি নির্বাচনেই লেবার পার্টির জন্য প্রচার চালিয়েছেন। স্থানীয় মহিলা কাউন্সিলর, নেতাকর্মী এবং স্থানীয়ভাবে পার্টিতে সক্রিয় ভূমিকা গ্রহণে নারীদের উৎসাহিত করার জন্য তিনটি সফল আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন করেছেন তিনি। সেই সঙ্গে নারী অগ্রগতিতে তহবিল সংগ্রহে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি ধারাবাহিকভাবে মানুষের জন্য কাজ করে যেতে চান। তার অর্জিত দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান সেভেন কিংসের লোকদের জীবনমানের উন্নতি ভূমিকা রাখবে বলেই প্রত্যাশা তার।

রমেন্দ্র নারায়ণ সোম ও যুথিকা সোম জুঁই দম্পতির ৫ মেয়ে ও এক ছেলে সন্তানের মধ্যে পুষ্পিতা সবার ছোট। তার বড় ভাই কানাডা প্রবাসী সুদীপ সোম রিংকু ও কানাডার মূল ধারার রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন।    

উল্লেখ্য, সিলেটের পুষ্পিতা গুপ্ত সেক্যুলার বাংলাদেশ মুভমেন্ট, যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বহুমুখী কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত। নিজ পেশার পাশাপাশি বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের জন্য কাজ করেন তিনি। এজন্য সেখানকার একটি স্কুলের ডেপুটি ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। সেখানে কাজ করতে গিয়ে পুষ্পিতা সমাজে শিশুরা সমাজ ও পরিবারে যেসব চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হয় তা বেশ দারুণভাবে উপলব্ধি করছেন। এই কাজে প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার মাধ্যমে তিনি বুঝতে সক্ষম হয়েছেন যে, কীভাবে পরামর্শের মাধ্যমে পরিবারে পিতা-মাতাদের অনেক সমস্যা সমাধান সম্ভব। 

আরসি-১০